মে ২৪, ২০১৯ ৯:৩০ পূর্বাহ্ণ
Home / BREAKING NEWS / বগুড়ায় মামীকে হত্যার পর ভাগ্নের আত্মহত্যা

বগুড়ায় মামীকে হত্যার পর ভাগ্নের আত্মহত্যা

বগুড়ার শিবগঞ্জ উপজেলার মোকামতলায় মামীকে হত্যার পর আত্মহত্যা করেছে ঘাতক ভাগ্নে। মঙ্গলবার সকাল ১০টার দিকে শিবগঞ্জ উপজেলার মোকামতলা ইউনিয়নের ভাগকোলা গ্রামে এই ঘটনা ঘটে।

নিহত আলেয়া বেগম ভাগকোলা গ্রামের কৃষক সাইদুল ইসলামের স্ত্রী। অপরদিকে ভাগ্নে আপেল মিয়া শিবগঞ্জ উপজেলার রায়নগর ইউনিয়নের টেপাগাড়ি গ্রামের মৃত আজাহার আলীর ছেলে।

পুলিশ ও এলাকাবাসী জানান, পেশায় কাঠ মিস্ত্রি আপেল মিয়া তার নানার বাড়িতে বসবাস করতেন। কদিন ধরে তার সঙ্গে আলেয়া বেগমের বিরোধ চলছিল। মঙ্গলবার সকাল ১০টার দিকে দুজন বাকবিতণ্ডায় জড়িয়ে পড়ে। এক পর্যায়ে আপেল তার কাছে থাকা কাঠ কাটার বাটাল দিয়ে মামী আলেয়া বেগমকে এলোপাথারী আঘাত করে। এতে তার কান, বুক ও পেটে গুরুতর জখম হয়। অতিরিক্ত রক্তক্ষরণে ঘটনাস্থলেই তার মৃত্যু হয়।

এদিকে আপেলকে দৌড়ে পালিয়ে যেতে দেখে গ্রামবাসী এদিক সেদিক খোঁজাখুঁজির পর ওই গ্রামে অবস্থিত ইউনিয়ন উপ-স্বাস্থ্যকেন্দ্রের পরিত্যক্ত ভবনে আপেলের পেটকাটা রক্তাক্ত লাশ দেখতে পান।

শিবগঞ্জ থানার ওসি মিজানুর রহমান জানান, পারিবারিক কলহের জের ধরে আপেল মিয়া প্রথমে তার মামীকে হত্যা করে। পরে সে নিজে আত্মহত্যার পথ বেছে নেয়। দু’জনের লাশ উদ্ধার করে বগুড়া জিয়াউর রহমান মেডিকেল কলেজ হাসপাতাল মর্গে পাঠানো হয়েছে। আপেলের লাশের পাশ থেকে রক্তমাখা বাটালটি উদ্ধার করা হয়েছে।

এলাকাবাসীর অভিযোগ, আপেল মিয়া তার মামী আলেয়া বেগমকে প্রেমের প্রস্তাব দিয়েছিল। কিন্তু তার মামী সেটি প্রত্যাখ্যান করে। এ নিয়ে পারিবারিকভাবে শালিস হয়েছিল। শালিসে আপেলকে নানার বাড়ি ছেড়ে বাবার বাড়িতে চলে যেতে বলা হয়। মূলত তখন থেকেই আপেল তার মামীর ওপর ক্ষিপ্ত হয়ে ওঠে।

ইত্তেফাক